শালিকা যখন বউ (পর্ব-০৩)

| By admin | Filed in: পরোকিয়া.

আজকে আমার বাসর রাত” , বিয়ের কাজ সব শেষ করার পর রিশাকে নিয়ে আমাদের বাড়িতে আসলাম। আজকে ভালোই লাগছে হবু বউ পালিয়েছে তো কি হয়েছে হবু শালী তো আছে। তবে হবু শালী মানে আমার বউ সেও কিন্তু দেখতে সেই বাঁশ থুক্কু ক্রাশ খাওয়ার মতোই। রিশা এখনো ছোট্ট তবে একেবারেই যে ছোট্ট তানা। বিয়ের বয়স এখনো হয়নি রিশার কিন্তু আপনারাই তো দেখলেন বিয়েটা কেমন করে হলো। যাই হোক মনে অনন্দ নিয়ে বাসর ঘরে ঢুকলাম। আহা এই বাসর রাত নিয়ে ছোট্ট বেলায় কত স্বপ্ন দেখতে কত পেন্ট নষ্ট ক…..না থাক সব কথা সব খানে বলা যায় না।

এখন রাত ০২:০০ আমি বাসর ঘরে ঢুকে দরজাটা বন্ধ করলাম। আর খাঁটের কাছে এসে দেখি রিশা ১হাত ঘুমটা টেনে বসে আছে। আমি খাটের উপর উঠে বসে রিশার ঘুমটা তুলতে যাব আর অমনি রিশা আমার হাতটা সড়িয়ে দিয়ে ঘুমটা তুলে।

-রিশা:এই যে দুলাভাই আপনি কিন্তু একদম আমার কাছে আসবেন না। স্পর্শ করবেন বলে দিলাম।

-আমি:মানে কি বলো এইসব আমি তো তোমার স্বামী। আর তুমি তো আমার বউ। আজকে আমাদের বাসর রাত আর তুমি বলছো কাছে আসবো না তোমাকে স্পর্শ করবো না।

-রিশা:জি না। আমি আপনাকে বিয়ে করতে চাইনি।আর আমার কি বিয়ের বয়স হয়েছে? আর আপনার তো বিয়ে করার কথা ছিল আমার বড় আপুকে?

-আমি:হ্যা কিন্তু সেটা তো হয়নি তোমার আপু তো পালিয়েছে অন্য একটা ছেলের সাথে পাজি পালাটি মাইয়া।

-রিশা:এই খবরদার একদম আমার আপুকে নিয়ে কোন বাজে কথা বলবেন না বলে দিলাম(একটু রাগি কন্ঠে)

-আমি:পালাটি মেয়ে কে পালাটি বলবো না কি বলবো পালাটি ছেলে?

-রিশা:পালাবে না তো কি করবে শুনি? প্রেম করবে একজন কে আর বিয়ে আর একজন কে??

-আমি:আচ্ছা এইসব বাদ দাও তো অনেক রাত হয়েছে।

-রিশা:তো আমি কি করবো?

-আমি:কি করবে মানে? আজকে আমাদের বাসর রাত!

-রিশা:হুম তো কি হয়েছে?

-আমি:বাসর রাতে কেউ এভাবে বসে রাত কাটায় নাকি??

-রিশা:তো কি ভাবে রাত কাটায়??

-আমি:কেন তুমি জান না.??

-রিশা:আমি কেমন করে জানবো? আমি তো এখনো ছোট্ট!

আমি:কিইই তাহলে বিয়ে করলে কেন??

  • রিশা:বাবা বলেছে তাই করেছি। আমি কখনো বাবার অবাধ্য হয়নি তো তাই।
  • আমি:আল্লাহ্গো তাহলে কি আমার বাসর হবে না আমার এত স্বপ্ন আমার বাসর??

-রিশা:আপনার বাসর হবে তো বড় আপুর সাথে।

-আমি:এই আমি বিয়ে করেছি তোমাকে। বাসর করবো কেন তোমার আপুর সাথে। আমি তো তোমার স্বামী।

  • রিশা:এই দেখুন আমি এতকিছু জানিনা। আপনি আমার দুলাভাই শুধু এটুকুই আর কিছুনা। আর আপনি সারাজীবন আমার দুলাভাই হয়ে থাকবেন ব্যাস।

-আমি:উফফ প্লিজ রিশা বাদ দাওনা এসব।

-রিশা:কোন সবের কথা বলছেন দুলাভাই।

-আমি:এই যে তোমার এই পিচ্চির নাটকটা।

  • রিশা:কি আমি নাটক করছি?

এবার একটু রাগ দেখিয়ে বললাম রিশাকে

-আমি:তা নয়তো কি? তখন যে বললে আমার কাছে আসবেন না আমাকে স্পর্শ করবেন না? আর এখন বলছো তুমি কিছুই জাননা?

-রিশা:আরে তখন তো ওটা আমি Tv serial এর ডায়লগ বলেছি। আসলে প্রায় দেখি সিরিয়ালে বাসর রাতে এমন করে বলে তাই আমিও বলেছি।

-আমি:কিইইই?

-রিশা:হুমম কেমন হয়েছে দুলাভাই?

  • আমি:হুমম খুব ভালো হয়েছে।

আল্লাহ এটা কার পাল্লায় পরলাম। আপনারাই বলেন বউ যদি স্বামীরে দুলাভাই বলে ডাকে তাহলে কেমনটা লাগে। তাও আবার বাসর রাতে। শালার বাবা শেষ-মেষ এই অবুঝ পিচ্চি মাইয়াটা কে আমার গলায় ঝুলাই দিল। যে কিনা কিছুই বোঝেনা। যাই হোক এটা খুব মেরা মত করতে হবে। সবকিছু বুঝাতে হবে।

-রিশা:কি হলো দুলাভাই কিছু বলছেন না যে?

-আমি:আচ্ছা তুমি তো খুব সিরিয়াল দেখ তাই না?

-রিশা:হুমম দেখি তো??

-আমি:আচ্ছা চল আজকে আমরা ঐ সিরিয়ালের মত করে বাসর করি?

-রিশা:কেমন করে?

এইতো লাইনে আসছে

-আমি:আমার কাছে এসে বসো।

রিশা আমার কাছে এসে বসে

-রিশা:হুমম এবার?

-আমি:আর একটু কাছে আস।

রিশা আমার একদম কাছে এসে বসলো

  • রিশা:হুমম এবার??

-আমি:এবার আমার দু’কাধে দু’হাত দিয়ে আমার চোখের দিকে তাকাও।

রিশা আমি যা বললাম তাই করলো।

  • রিশা:এবার??

-আমি:আমার চোখের দিকে তাকিয়েই থাকো।

রিশা আমার চোখের দিকে তাকিয়ে আছে। আমিও ওর চোখের দিকে তাকিয়ে আছি। জানালার ফাঁক দিয়ে চাঁদের আলো এসে পরছে রিশার মুখে। কি নিষ্পাপ মুখ চোখে হালকা করে কাঁজল। কপালে ছোট্ট করে একটা টিপ। ঠোঁটে হালকা করে লিবিস্টিক। রিশা আমার কাছে আশাতেই আমার মাঝে অন্যরকম একটা অনুভূতি কাছ করতে লাগলো। ইচ্ছা করছে তার নমর ঠোঁঠের আমার ঠোঁঠের মিষ্টি সম্পর্কে আমার ভালোবাসায় হাড়িয়ে দেই রিশাকে। আমি একহাত রিশার কমড়ে দিয়ে আমার আর কাছে টেনে নিতেই রিশার সারা সরিল যেন কেঁপে উঠলো।

-রিশা:কিক…কি করছেনটা কি??

-আমি:চুপ এখন কোন কথা নয়।

আমি আমার মুখ একদম রিশার কাছে এনে অস্তে অস্তে করে

-আমি:চোখ বন্ধ কর(ফিস ফিস করে)

রিশা বাচ্চাঁদের মতো আমার কথা মতো চোখ বন্ধ করলো। চুপ করে আছে।তারপর আমিও চোখ বন্ধ করে আস্তে আস্তে করে রিশার ঠোঁঠের সাথে মিষ্টি সম্পর্কেরর জন্য এগিয়ে যেতে লাগলাম।

চলবে…………

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , ,

Comments