best bangla golpo ঠিক যেন লাভস্টোরী – 16 – All Bangla Choti

April 25, 2021 | By admin | Filed in: চটি কাব্য.
best bangla golpo choti. ঘর না হয় তবু ঠিক হলো,কিন্তু খাবে কি? সৃজনকে ঘরের মধ্যে রেখে বেরিয়ে যায় সৃষ্টি। বস্তির ভেতরেই রেল লাইন এর পাশে একটা’ মা’র্কেট এর মতো আছে। কিন্তু ওর কাছেতো টা’কা দুই হা’জার এর ও কম। অ’বশ্য মোবাইলটা’ আছে। সৃষ্টির মনে পরে গত জন্মদিনে ওর বাবা ওঁকে একটা’ আইফোন গিফট করেছিলো, তা দেখে সেই কি মন খারাপ সৃজন এর, শেষমেশ সৃজনকে আইফোনটা’ দিয়ে ওর পুরনো স্যামসাং টা’ নিয়েছিলো সৃষ্টি। এক্সিডেন্ট এর সাথে সাথেই হা’রিয়ে গেছে সৃজন এর আইফোনটা’।

পুরোনো কথা ভেবে একটা’ দীর্ঘশ্বাস বেরিয়ে আসে সৃষ্টির বুক চিরে। সেইসব দিনগুলো এখন কেবলি’ স্মৃ’তি। মা’র্কেটে ঢুকে মোবাইলটা’ আর ওর কানের দুল মিলি’য়ে বি’ক্রি করে পায় পনেরো হা’জার টা’কার মতো। তা দিয়েই ঘরের মা’চান এর বি’ছানার জন্য একটা’ তোষক, একটা’ চাদর আর দুইটা’ বালি’শ কেনে সৃষ্টি। এছাড়াও ঘরের প্রয়োজনীয় হা’ড়ি, পাতিল,থালা,বাসন, আয়না, চিরুনি, চাল, ডাল, নুন, মশলা সব কিছু কিনতেই বেরিয়ে যায় দশ হা’জার টা’কার মতো।

best bangla golpo

মা’র্কেট থেকে বেরুনোর সময়ে মনে পরে আজ গোসল শেষে কি পরবে এমন কাপড় ও ওদের নেই। সেশমেষ সস্তায় সৃজন এর জন্য দুইটা’ ট্রাউজার আর টি শার্ট আর ওর নিজের জন্য সস্তার ফুলওয়ালা প্রিন্ট এর দুটি সালোয়ার কামিজ কিনে ফিরে আসে সৃষ্টি। ঘরে এসে নিরবেই মা’চান টা’র ওপরে তোশক ফেলে চাদর বি’ছিয়ে বি’ছানা করে ফেলে সৃষ্টি। কিনে আনা ছোট্ট মুখ দেখা আয়নাটা’ টা’নিয়ে দেয় ঘরের ভেতরে দেয়ালে পোতা একটা’ পেরেক এর সাথে। ঘর মোটা’মুটি গোছগাছ করে বেরিয়ে আসে সৃষ্টি।

মনে পরে একদিন এর বেশি সময় ধরে না খেয়ে আছে ওরা। নতুন কেনা হা’ড়ি পাতিল নিয়ে সৃষ্টি এগিয়ে যায় উঠোনের মা’টির চুলাটা’র দিকে। নিরবেই মা’নিয়ে নিতে চায় নিজেকে নতুন পরিস্থিতির সাথে। আজ পর্যন্ত কখনো মা’টির উনুনে রাধেনি সৃষ্টি। চুলা জ্বালাতে গেলে ধোয়ায় ভরে যায় চারপাশ। চোখে মুখে ধোঁয়া ঢুকে জল বেরিয়ে আসছে ওর চোখ দিয়ে, তার পরেও হা’ল ছাড়েনা ও। ছোট বেলা থেকেই জেদি মেয়ে সৃষ্টি। কখনো হা’র মা’নতে শেখেনি,হা’র সে মা’নবেও না। অ’নেক ক্ষন এর চেষ্টা’তে চুলা জ্বালাতে সক্ষম হয় ও। best bangla golpo

চুলা ধরিয়ে হা’ড়িতে ভাত ফুটতে দেয় ও। ভাতে দেয় তিন চারটি আলু। নিরবে বারান্দায় হুইলচেয়ারটা’তে বসে বসে বোনের কাজ দেখতে থাকে সৃজন। গতকাল রাত এর পর থেকে এখন পর্যন্ত একটা’ কথাও বলেনি ও। ঘটনার আকস্মিকতায় যেন বোবা হয়ে গেছে একেবারে। ভাতটা’ ফুটে গেলে ভাত নামিয়ে তেল, নুন, পেয়াজ আর শুকনো মরিচ দিয়ে আলু চটকে নেয় সৃষ্টি। ধোঁয়া ওঠা গরম ভাত একটা’ প্লেট এ নিয়ে আলু ভর্তা দিয়ে মা’খিয়ে নিয়ে যায় সৃজন এর কাছে।

সদ্য কিনে আনা প্লাস্টিকের টুলটা’ পেতে সৃষ্টি বসে পরে সৃজন এর পাশে। ভাত খায়িয়ে দিতে থাকে ভাইকে। সৃজন ও নিরবে কোনো কথা না বলে খেতে থাকে বোনের হা’ত থেকে। সৃষ্টিও সৃজনকে খাওয়াতে খাওয়াতে মা’ঝে মা’ঝে দুই একবার নেয় নিজের মুখেও। নিরবে জল গড়াতে থাকে ওর দু চোখের কোন বেয়ে। সৃজন কেবলই ফ্যালফ্যাল করে চেয়ে থাকে। best bangla golpo

এদিকে সকালে ঘুম ভেঙে যায় চম্পা রানীর। ঘুম ভাঙতেই ড্রইংরুমের ফ্লোরে নিজেকে নগ্ন আবি’ষ্কার করে বি’স্মিত হয়ে ওঠে। আস্তে আস্তে একে একে মনে পরতে থাকে গতরাতের ঘটনা। তাকিয়ে দেখে তাকে প্রায় জড়িয়ে আছে রবি’উল হা’সান। নাভির নিচে আট ইঞ্চি বাড়াটা’ নেতিয়ে পরে ল্যাকপ্যাক করে ঝুলছে যেন। ওইদিকে বাপ মেয়ে একে অ’ন্যকে কষে জড়িয়ে ধরে আছে। নগ্ম সবাই। গত রাতে নিজের নির্লজ্জতার কথা মনে পরতেই গলা শুকিয়ে আসে চম্পা রানীর। আস্তে আস্তে উঠে বসে।

নিজে উঠে বসতেই দেখে চোখ পিটপিট করে তাকাচ্ছে রবি’উল হা’সান। রবি’উলকে তাকাতে দেখেই নাইটিটা’ টেনে নিয়ে নগ্ন বুক ঢাকার চেষ্টা’ করে চম্পা রানী। চম্পা রানীর অ’বস্থা দেখে মুচকি হা’সে রবি’উল হা’সান। রবি’উলকে ওভারে হা’সতে দেখে তরিঘরি করে উঠে থলথলে পাছা দুলি’য়ে থপ থপ করে সিড়ি ভেঙ্গে ওপরে উঠতে থাকে চম্পা রানী আর পেছন থেকে রবি’উল ঠোঁট চাটতে চাটতে দেখতে থাকে নগ্ন মা’ংসল পাছার উদ্যম ওঠানামা’। একে একে ঘুম থেকে উঠে পরে সবাই। best bangla golpo

ফ্রেশ হয়ে কাপড় চোপড় পরে নিয়ে রবি’উল এর গাড়িতে করে বেরিয়ে পরে হা’সপাতাল এর উদ্দেশ্যে। গতকাল রাতের ঘটনায় কেমন যেন আড়ষ্ট হয়ে আছে সবাই। হা’সপাতালের পার্কিং লটে গাড়ি পার্ক করে ভেতরে ঢুকে পরে রবি’উল। পেছন পেছন আসে বাকি তিনজন। রিসিপশন ডেস্কে যেতেই শুনতে পারে চিড়িয়া উধাও। রাগে নিজের মা’থার চুল ভিড়বার যোগাড় হয় রবি’উল হা’সান এর। মনে মনে বলে তার মা’নে ওই শালী মা’গিটা’ সবাই জানতে পেরেছিল, আমা’দের এখান থেকে সরিয়ে দিয়েই ভেগেছে।

তার এত্তো দিন ধরে সাজানো প্ল্যান ভেস্তে যাচ্ছে দেখে রাগে ফেটে পরে রবি’উল। সৃষ্টি মা’গি তোর রেহা’ই নেই আমা’র হা’ত থেকে। পৃথিবীর যে প্রান্তেই যাস না কেন পার পাবি’না তুই। মরিয়া হয়ে হা’সপাতাল ছেড়ে বেরিয়ে আসে ওরা। বাসায় ফিরে সাম্ভাব্য সব জায়গাতেই খোঁজ নেয় রবি’উল, কিন্তু কোনো খোঁজ নেই সৃজন আর সৃষ্টির। মনে হয় ঠিক যেন কর্পুর এর মতো উবে গেছে দুই ভাইবোন। best bangla golpo

রাত নেমেছে ঘিঞ্জি বস্তিতে। রাত নয়টা’ এখানে অ’নেক রাত। বেশির ভাগ ঘরগুলোতেই বাতি নেভানো। মা’ঝে মা’ঝে কোনো কোনো ঘর থেকে ভেসে আসছে বাচ্চাদের চিৎকার চেচামেচি, কান্না, বড়দের নোংরা খিস্তি ঝেরে গালাগাল। আস্তে আস্তে সেগুলোও সব থেমে আসছে। কোলাহল থেমে নিঝুম নিস্তব্ধতা নেমে আসছে চারপাশে। এখন কেবল মা’ঝে মা’ঝে বাইরে দুই একটা’ কুকুর এর ঘেউঘেউ আওয়াজ ছাড়া অ’ন্য কোনো আওয়াজ আসছে না। বালি’শে মা’থা ঠেকিয়ে নিরবে শুয়ে আছে দুই ভাইবোন।

সৃষ্টি উদাস চোখে তাকিয়ে আছে ঘরের ওপর এর টিনের চালার কড়ি-বর্গার দিকে। পাশ ফিরে তাকিয়ে দেখে ঘুমিয়ে গেছে সৃজন। ঘুমের ঘোরে কি নিষ্পাপ লাগছে ওকে দেখতে। এখানে এসে মা’থা আর হা’তের ব্যান্ডেজ খুলে ফেলেছে ও। পায়ের টা’ এখনো আছে। একরাশ অ’বাধ্য চুল এসে ছড়িয়ে আছে কপাল জুড়ে।

সৃষ্টি অ’পলক তাকিয়ে থাকে ভাই এর নিষ্পাপ মুখের দিকে। এক হা’তে কপাল এর ওপরকার চুলগুলো সরিয়ে দিয়ে ঠোঁট ছুয়ে দেয় ভাই এর কপালের ওপরে। একটা’ দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে আবারও চিৎ হয়ে শুয়ে পরে ও। best bangla golpo

ভাবতে থাকে ওদের ভবি’ষ্যৎ নিয়ে। সব কিছু কিনে এখন মা’ত্র হা’জার চারেক এর মতো টা’কা আছে হা’তে। এ দিয়ে না হয় কোনোভাবে কষ্ট করে এই মা’সটা’ চলা যাবে, কিন্তু তারপর? কিভাবে চলবে? যে করেই হোক একটা’ না একটা’ কাজ জোটা’তেই হবে। বস্তির কেউ ওদের আসল সম্পর্ক জানে না। সকলেই জানে যে ওরা স্বামী-স্ত্রী। সৃজনকে সাবধান করতে হবে ও যেন আবার সবার সামনে আপু ডেকে না বসে!! যদিও সৃজন এর মুখে আপু ডাক শুনতেই বেশি ভালোবাসে ও তবে সবার সামনে তো আর তা ডাকা যাবেনা।

এসব সাতপাঁচ ভাবতে ভাবতেই কখন যেন ঘুম নেমে আসে ওর দুচোখে। এসব বস্তি এলাকাগুলোতে যেমন রাত নেমে আসে তাড়াতাড়ি তেমনি সকাল ও হয় তাড়াতাড়ি। কাকডাকা ভোরেই চারদিককার চিৎকার চেচামেচিতে ঘুম ভেঙে যায় সৃষ্টির। সৃজন এর দিকে চেয়ে দেখে এখনো ঘুমোচ্ছে ও। আস্তে করে সৃজন এর ঘুম না ভাঙিয়ে উঠে যায় সৃষ্টি। পুরো এই বস্তিজুড়ে কল আছে মা’ত্র পাঁচটা’। বালতিটা’ নিয়ে কলতলায় যেতেই দেখে পানির জন্য লম্বা লাইন লেগে গেছে। best bangla golpo

লাইনে দাঁড়িয়ে প্রায় বি’শ মিনিট পরে পানি পায় সৃষ্টি। ভরা পানির বালতি বয়ে আনতে অ’নেক কষ্ট হয় ওর। পানি এনে দেখে সৃজন উঠে বসে আছে। বারান্দায় বালতিটা’ নামিয়ে রেখে ঘরে ঢোকে সৃষ্টি।
– কিরে ভাই? কখন উঠলি’?
– অ’নেকক্ষণ। কই গিয়েছিলি’ আপু?
– পানি আনতে। চল হা’তমুখ ধুবি’।

সৃজনকে ধরে ধরে বাইরে নিয়ে আসে সৃষ্টি। হুইলচেয়ার এ বসিয়ে যত্ন করে হা’ত মুখ ধুয়িয়ে দিতে দিতে বলে শোন এখানকার সবাই কিন্তু জানে যে আমরা স্বামী-স্ত্রী। কারো সামনে যেন আবার আমা’কে আপু করে ডাকিসনা। সৃজন কোনো কথা বলেনা। হা’তমুখ ধোঁয়া শেষ করে যখন সবে চুলোটা’ জ্বালি’য়েছে এমন সময়ে ওদের এখানে আসে কালকের সাহা’য্যকারী সেই মহিলা। সৃষ্টিকে চুলা ধরাতে দেখে বলে আহা’রে কি কষ্ট তোমা’গো, সৃষ্টির নরম কোমল হা’তটা’ নিজের হা’তে নিয়ে বলে এই হা’ত কি কাম করনের হা’ত? best bangla golpo

দেইখাই বুজা যায় রড়লোক মা’ইনষের বেটি আছিলা। সৃষ্টি কিছু না বলে কেবল নীচদিক তাকিয়ে থাকে। মহিলা আবার বলে
– তা এইহা’নে যে আইছো খাইবা কি কইরা? খাওন দাওন এর একটা’ ব্যাবস্থা তো করন লাগবো?
সৃষ্টি যেন আশার আলো দেখতে পায়। মহিলার দুই হা’ত আকড়ে ধরে বলে
– ভাবি’ আমা’কে একটা’ কাজ জুটিয়ে দিন না! যে কোনো কাজ। আমি সব করতে পারি সত্যি। একটা’ কাজ এর খুব দরকার আমা’র।

মহিলা কিছুক্ষণ ভেবে বলে তুমা’রে তো যে সে কাম দেওন যাইবো না, খাড়াও আমি এলাকার কুমিশনার সাব এর বাড়িত কাম করি। কুমিশনার সাব এই বস্তির পোলাপাইনগো জন্যে একখান ইস্কুল খুইল্যা দিছে। দেহি তারে কইয়া তুমা’রে ওইহা’নে ঢুকাইবার পারি নাকি।
সৃষ্টি বলে তাহলে তো ভাবি’ অ’নেক ভালো হয়।

সত্যিই মহিলাটা’ অ’নেক ভাল পরদিনই সৃষ্টিকে নিয়ে যায় কমিশনার এর বাসায়। কমিশনার সব শুনে চাকরি দিতে রাজি হয় সৃষ্টিকে। বস্তির স্কুল, মা’স গেলে আট হা’জার টা’কা বেতন। সৃষ্টি রাজি হয়ে যায় তাতেই। best bangla golpo

যাক একটা’ ভাবনাতো অ’ন্ততো দুর হলো। আগের কথা ভাবতে থাকে সৃষ্টি ওদের দুই ভাইবোনকে বাবা হা’ত খরচ ই দিতো দশ হা’জার দশ হা’জার করে বি’শ হা’জার টা’কা। অ’বশ্য মা’স শেষে দেখা যেত এক হা’জারো খরচ হয়নি সৃষ্টির, বাকি টা’কাটা’ও বাবা মা’য়ের আলক্ষে তুলে দিত ও ছোট ভাইটা’র হা’তে।

আর এখন এই আট হা’জার টা’কার তিন হা’জার বাড়ি ভাড়া দিয়ে বাকি পাঁচ হা’জারে পুরো মা’স চালি’য়ে নিতে হবে!! বাড়ি ফিরে সৃজনকে চাকরির কথা জানায় সৃষ্টি। সৃজন কিছুই বলতে পারে না। কি বলবে ও? এই অ’ক্ষম পা নিয়ে কিই বা বলবার আছে?

এদিকে সৃষ্টি সৃজনকে খুঁজে না পেয়ে পাগলা কুত্তা হয়ে উঠেছে রবি’উল হা’সান। কত্তো সুন্দর প্ল্যান ছিলো ওর। মা’রুফ মেম্বার এর সাথে মিলে মা’মুন সাহেবকে পরিবারসহ দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেবে। তারপর বি’য়ে করবে সৃষ্টিকে। সৃষ্টিকে বি’য়ে করে সব কিছুর একছত্র মা’লি’ক হবে ও। তখন মা’রুফ মেম্বার কে ল্যাং মেরে ফেলে দেয়া কোনো ব্যাপার ছিলোনা, কিন্তু এখন? ইচ্ছা করলে মা’রুফ মেম্বার ই যেকোনো সময় ল্যাং মেরে ফেলে দিতে পারে তাকে। না না এটা’ কিছুতেই হতে দেয়া যায়না। best bangla golpo

বেনসন এন্ড হেজেছ ঠোটে ঝুলি’য়ে বুদ্ধির গোড়ায় ধোঁয়া দিতে থাকে রবি’উল হা’সান। হ্যা উপায় পেয়ে গেছে সে। মা’মুন সাহেবদের সবার অ’নুপস্থিতিতে এসব বি’ষয় সম্পত্তি সব এখন মা’রুফ মেম্বার এর। আর মা’রুফ মেম্বার এর একমা’ত্র উত্তোরাধীকারী হলো মনি! হ্যা মনি, মনিকে বি’য়ে করবে ও। তাহলেই কেবল এ সম্পত্তি তার মুঠো গলে বেরিয়ে যাবার চান্স পাবেনা। মা’রুফ মেম্বার এর কাছে গিয়ে মনিকে বি’য়ের প্রস্তাব দিতেই এক কথায় রাজি হয়ে যায় মা’রুফ মেম্বার।

তার কারন সে ঠিকি বুঝেছে এতো সব বি’ষয় সম্পত্তি একা হা’তে সামা’ল দেয়া তার কর্ম নয়। রবি’উল যদি তার জামা’ই হয় তাহলে শশুর জামা’ই মিলে এসব দেখাশোনা করা কোনো ব্যাপার ই না। শুরু হয়ে যায় বি’য়ের তোড়জোড়। আর এদিকে সৃষ্টি রোজ স্কুলে যাওয়া আসা শুরু করেছে। খুব একটা’ কষ্ট না, কাছেই স্কুল। যেতে হয় সকাল দশটা’য়, আবার তিনটা’র মধ্যেই ফিরতে পারে। সৃজন এর পায়ের ব্যান্ডেজটা’ খোলা দরকার। সেদিন স্কুল থেকে ফেরার সময় সাথে করে বস্তির একমা’ত্র ডাক্তারকে নিয়ে আসে সৃষ্টি। best bangla golpo

ডাক্তার এসে খুলে দেয় ব্যান্ডেজ। পা টা’ কেমন যেন নেতিয়ে আছে। কোমড় এর কাছ থেকে ঝুলছে অ’সড়ভাবে। সৃষ্টির ওই পা টা’র দিকে তাকাতেই কান্না পায়। অ’ন্য দিকে তাকিয়ে ওড়নায় চোখ মুছতে থাকে। কিন্তু সৃজন নির্বি’কার। ও ওর জীবনের চরম নিষ্ঠুর বাস্তবতা স্বীকার করে নিয়েছে। ডাক্তারকে নিয়ে ফেরার সময়ে সাথে করে দুটো ক্র্যাচ কিনে এনেছে সৃষ্টি। ক্র্যাচ দুটো হা’তে তুলে নিয়ে সামা’ন্য মুচকি হা’সে সৃজন। এ দুটোই এখন ওর সারা জীবনের সার্বক্ষণিক সঙ্গী!! বগলে ক্র্যাচ লাগিয়ে কিছুক্ষন হেটে দেখে সৃজন।

না খুব একটা’ কষ্ট না হা’টা’। মনে হয় যেন কতো দিন পর সৃষ্টির সাহা’য্য ছাড়া একা একা দাড়াতে পারছে!! ডাক্তার বেরিয়ে যেতেই ক্র্যাচ হা’তে ভাইকে দেখে আর নিজেকে আটকে রাখতে পারে না সৃষ্টি। ভাইকে জড়িয়ে হুহু করে কাঁদতে থাকে। বোনেত খোলা চুলে হা’ত বুলি’য়ে দিতে থাকে সৃজন। এই পাগলি’ কাঁদছিস কেন?

আমা’র তো কোনো অ’সুবি’ধা হচ্ছে না, এই দেখনা কেমন দিব্যি হা’টতে পারছি এখন। সৃষ্টি ভাইকে ছাড়েনা, জোরে জড়িয়ে ধরে রাখে নিজের বুকে। সারা জীবন ও এভাবেই আগলে রাখবে ওর ভাইকে। best bangla golpo

কক্ষনও কোনো বি’পদকে ছুতে দেবেনা। সৃষ্টি সৃজন বস্তিতে থাকলেও ওড়া যেন সবার থেকে আলাদা। প্রতিদিন বস্তির কোনো না কোনো ঘরে ঝগড়া লেগেই আছে আছো প্রায় এক মা’স হতে চললো কেউ কখনো ওদের দুজন এর ঘর থেকে একটু জোরে কথাও শোনেনি। সবাই ওদের একটু আলাদা সম্মা’নের চোখেই দেখে। বাচ্চাদের স্কুলে পড়ায় বলে আশপাশের সবাই সৃষ্টিকে ডাকে মা’ষ্টা’রনী বলে।

শুনতে খুব একটা’ খারাপ ও লাগেনা সৃষ্টির। পাশের বাড়ির ভাবি’টা’ তো প্রায়ই সৃজনকে বলে বুঝলা মিয়া ভাইগ্যগুনে মা’ষ্টা’রনীর লাহা’ন একটা’ বউ পাইছো। এরম বউ লাখে একটা’। মিলে না। শুনে কেবল মুচকি হা’সে সৃজন। সত্যিই তো ওর বোনটা’র মতো করে ভালোবাসতে পারে আর কয়জন??

বি’য়ের দিনক্ষণ পাকা হয়ে গেছে রবি’উল আর মনির। কেনাকাটা’ নিয়ে ব্যাস্ত সময় পার করছে সবাই। সৃষ্টির ঘরটা’ নিজের জন্য দখল করেছে মনি। আপাতত বি’য়ের আগ পর্যন্ত সৃজন এর ঘরটা’তেই থাকছে রবি’উল। আর মা’মুন সাহেব এর বেডরুম এখন মা’রুফ মেম্বার এর দখলে। best bangla golpo

থেমে নেই সৃজন সৃষ্টির জীবন ও। আস্তে আস্তে ওরাও অ’ভ্যস্ত হয়ে উঠছে এই জীবনটা’র সাথে। এই বস্তিজীবন এ এসে সৃষ্টি অ’নুভব করতে পারছে ভালোবাসার কাছে আসলে টা’কা পয়সা বি’ষয় সম্পত্তি সব ই তুচ্ছ। এই অ’নিশ্চিত জীবনের মা’ঝেও ভালোবাসার আলাদা একটা’ অ’নুভুতি আছে। মূলত ভালোবাসাটা’ হলো সার্বজনীন। সেদিন সকালে সৃষ্টির স্কুলে একটা’ মিটিং আছে। এ জন্য তারাতারি করে রান্নাবান্না শেষ করে সৃজনকে খায়িয়ে বেরিয়ে যায় সৃষ্টি। সৃষ্টি চলে যাবার পরে সময়টা’ একাই কাটে সৃজন এর।

সৃষ্টি জানে সৃজন কেমন বই এর পোকা। এ জন্য স্কুল থেকে আর পুরোনো লাইব্রেরী থেকে বেশ কিছু বই এনে দিয়েছে ওকে। অ’গুলো পড়তে পড়তে দিব্যি সময় কেটে যায়। সৃষ্টি ওর স্কুলের বাচ্চা আর টিচার সবার কাছেই অ’ল্প দিনেই বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। টিচারদের মধ্যে ওর বয়স ই সবচেয়ে কম। সবাও ওকে অ’নেক আদর করে, বি’শেষ করে হেড মিস্ট্রেস এর কাছেতো এখন সৃষ্টি সবচেয়ে প্রিয়। সেদিনকার মিটিং এ স্কুল কমিটির কাছে সব টিচাররাই সৃষ্টির অ’নেক প্রশংসা করে। best bangla golpo

সৃষ্টি সবার প্রশংসা শুনে কেবল একটু লাজুক হা’সে। মিটিং শেষ হলে সব টিচারদের জন্য সেদিন নাস্তার ব্যাবস্থা করা হয়। একটা’ করে মিষ্টি, সমুচা আর সিঙ্গারা। প্যাকেট খুলে মুখে দিতে গেলেই সৃষ্টির মনে পরে যায় সৃজন এর কথা। আর মুখে ওঠে না ওর। প্যাকেটটা’ আবার মুরে ঢুকিয়ে নেয় সাইড ব্যাগটা’য়। হেড মিস্ট্রেস খেয়াল করে বলে কি ব্যাপার সৃষ্টি ল? তুমি খেলে না যে?
– আসলে ম্যাম আমা’র গ্যাসের প্রবলেম তো একটু, আজ সকালে অ’ষুধ খেতে ভুলে গেছি এখন এগুলা খেলে আমা’কে আর দেখতে হবে না।

হেড মিস্ট্রেস আদরের হা’ত বুলি’য়ে দেয় সৃষ্টির গালে। সত্যি তুমি খুব মিষ্টি একটা’ মেয়ে।
বাড়ি ফিরে সৃষ্টি প্যাকেট টা’ দেয় সৃজন এর হা’তে।
– কি এটা’ আপু?
– খুলে দেখ কি?
– আরে সমুচা সিঙ্গারা বাহহ অ’নেকদিন পর। best bangla golpo

প্যাকেট থেকে বের করে খেতে নিয়ে বোনের কথা মনে পরে সৃজন এর। আমা’র জন্য এনেছিস তুই খাসনি?
– আমি খেয়েছি ভাই। এটা’ তোর জন্য। তুই খা।
সৃজন জানে সৃষ্টি না খেয়ে ওর জন্য এনেছে। সিঙ্গারাটা’ ভেঙে নিজে মুখে দিয়ে একটা’ অ’ংশ নিজের হা’তে তুলে দেয় বোনের মুখে।

ভাই এর ভালোবাসায় আপ্লুত হয়ে সৃষ্টি সিঙ্গারা টা’ চিবোতে চিবোতে কেঁদে ফেলে। বোনের চোখের জল দেখে মুচড়ে ওঠে সৃজন এর ভেতরটা’ও। ওর চোখ দুটোও ঝাপসা হয়ে আসে। তারাতারি করে অ’ন্য দিকে তাকায় সৃজন, কেননা ছেলে মা’নুষ এর চোখে জল যে বড্ড বেমা’নান! (চলবে…)

Source :
Allbanglachoti.com

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , ,

Comments