sera choti আচমকা by সত্যকাম – All Bangla Choti

April 19, 2021 | By admin | Filed in: চটি কাব্য.
bangla sera choti. সুজানবাবু একা মা’নুষ। বি’য়ে করেননি সেটা’র কারণ অ’স্ত্রবি’কল নয় কারণটা’ হলো একটা’ মেয়ে । তাঁর কলেজ জীবনের একটি মেয়ে । ভালোবাসা ছিল শারীরিক সম্পর্ক পর্যন্ত ছিল । কিন্তু ওই শারীরিক সম্পর্ক পর্যন্ত ছিল মেয়েটি । রোজ রাতে ঘুমোতে যাওয়ার সময় মনে পরে এখনো মা’য়েটিকে । কলেজ এর তখন MA 1st year। ছাত্র হিসাবে নেহা’ত খারাপ ছিলোনা সুজনবাবু । মা’য়েটিকে প্রথম দিন থেকেই পছন্দ হয়েছিল তাঁর.সুঠাম বক্ষযুগল যেন সব ছেলেরাই তাঁর সালোয়ার ভেদ করে সেটি দেখতে বদ্ধ পরিকর ।

সুজণবাবুর মনেহত মেয়েটি কি বোঝেও না একটু ঢিলে পোশাক ও তো পড়তে পারে । কিন্তু ওঁর কোনো ভুরুক্ষেপ নেই যেন বেশ উপভোগ ই করতো সে । মা’য়েটির নাম ছিল সোনালী । নামের যোগ্য সন্মা’ন ই রেখেছে মেয়েটি গায়ের রং সোনালীই বটে আর বক্ষযুগল না থাক সে বর্ণনা পরে হবে । সুজন ছিল ফাইন আর্টস এর ছাত্র আর তাঁর প্রিয় বি’ষয় ছিল nacked art । কাম না ওনার মনে হতো উলঙ্গ দেহ দেখেও যে যোনি ও বক্ষে হা’ত না দিয়ে শুধু জড়িয়ে ধরে কপালে চুমু খেতে পারে সেই প্রকৃত পুরুষ ।

sera choti

কিন্তু এ খালি’ ভাবনা । বাস্তবে কিন্তু এরমটা’ সুজন করতে পারেনি বলা উচিত তাকে করতে দেয়নি । বর্ষাকাল কলেজ ছুটির পর রোজকার অ’ভ্যাস মতোই সুজন লাইব্রেরি তে nacked art এর বি’ষয়ে বই পড়ছিলো । আচমকা পেছনে এক সুমধুর এসরাজের jhongkar ধ্বনির গলার স্বর সোনা গেলো । গলার আওয়াজ সুজনের চেনা , সোনালী । হ্যাঁ সোনালী । কিন্তু এটা’ অ’প্রত্যাশিত , ফাইন art এর studen হলেও সোনালী এর প্রিয় বি’ষয় potrert ।

সুমনার প্রথম কথা ” কি পড়ছো? ”
Nacked art গোপনীয় বি’ষয় নয় , আর সুজন কোনোদিন ভাবেওনি । কিন্তু আজ বইটা’কে বন্ধ করে দিলো ।
বললো ” এই আমা’র যা বি’ষয়” ।
সোনালী হা’সলো বললো ” বুঝেছি , তা শুধু পড়ো নাকি কিছু করও ” ।
কথাটা’র অ’ক্ষরিক অ’র্থ বুঝলেও সুজন বললো ” নিজের মনে যা আসে তাই ফুটিয়ে তুলি’ । ”
সোনালী বললো ” আমি দেখবো । ” sera choti

প্রস্তাব টা’ অ’প্রত্যাশিত । এতে অ’সুবি’ধা নেই কারণ বাড়িতে একাই থাকে সুজন থাকার মধ্যে তাঁর দূরসম্পর্কের এক কাকার মেয়ে কামিনী যে তাঁর থেকে বছর 10এর ছোট । কিন্তু অ’সুবি’ধা একটা’ই তাঁর সব nacked art এর মুখ ই সোনালীর । সেগুলো দেখে যদি রেগে যায় ।
তাই একটু ইতস্তত করছিলো শেষে সোনালীর কথাতে আর না করতে না পেরে বললো ” আচ্ছা চলো । ”
বেরিয়ে এলো তারা 2জনেই । বৃষ্টি তখণো অ’ঝোরে ঝরছে । সুজনের বাড়ি কলেজ থেকে মিনিট সাতেকর হা’ঁটা’পথ ।

ছাতা আনেনি সোনালী , একছাতার নিচেই 2জনে এ যেন এক স্বপ্নের মতো । হিন্দি রোমা’ন্টিক ছবি’তে প্রেম এইভাবেই তো শুরু হয় । মনে মনে হা’সলো সুজন কিন্তু মনের মধ্যে দুরুদুরু , অ’ন্যের নগ্ন যৌবন আবৃত শরীরে নিজের মুখ দেখে কি প্রতিক্রিয়া হবে সোনালীর?
এই দুশ্চিন্তার মধ্যেও সুজন অ’নুভব করলো ব্রা পড়েনি সোনালী , ছাতা একটি এবং বৃষ্টির প্রখরতার কারণেই প্রায় ঘনিষ্ট হয়েই চলছিল 2জনে । তখনই তাঁর হা’ত স্পর্শ করলো কোমল সুঠাম দীর্ঘ বক্ষযুগোলের একটিতে । sera choti

ব্রা পড়েনি আর আজ সালোয়ার টা’ একটু বেশি tight পড়েছে না? সোনালীর থেকে একটু বেশিই লম্বা সুজন ঘনিষ্ট হয়ে চলার দরুন তাঁর চোখ চলে গেলো সালোয়ার আর বক্ষযুগোলের মা’ঝের ফাঁকা জায়গায় বইয়ের পাতায় নিজের কল্পনায় অ’নেক বৃহৎ বক্ষযুগল দেখেছে একছে কিন্তু বাস্তবে এতো কাছথেকে দেখেনি সুজন মনেহলো যেন দুটি বরফ আবৃত পর্বতচুড়া উঁকি মা’রছে । তাঁর অ’জান্তেই লি’ঙ্গটি নাড়া দিয়ে উঠলো এ কাম উত্তেজনা সেটা’ জানে সুজন । এতো কাছে সোনালী সুযোগ সেটিও আছে ।

তাঁর মনের কথা কি বুঝলো সোনালী আমা’কে আরো উপভোগ করতে দেওয়ারজন্যই বোধহয় বেরিয়ে গেলো ছাতার তলা থেকে । বললো আমা’র বৃষ্টি তে ভিজতে খুব ভালোলাগে জানো কথা গুলো কানেই গেলো শুধু আমা’র মা’থাতে নয় কারণ আমা’র চোখ তখন তাঁর শরীর এ ফুটে ওঠা সোনালীর যৌবন ছিঁড়ে ছিঁড়ে খাচ্ছে। কিছুক্ষন পর বললাম এসো আমরা এসেই গেছি গলি’র মুখ ঘুরলেই তাঁদের ফ্লাট । আগে পৈতৃক বাড়ি থাকলেও সেটা’কে প্রোমোটিং করিয়ে একতলায় 2তো ফ্লাট আর বেশ কিছু টা’কা এসেগেছিলো হা’তে । sera choti

একতলায় একটা’ ফ্লাট এ সে আর তাঁর দূরসম্পর্কের খুড়তোতো বোন। আর একটি ফ্লাট তাঁর ষ্টুডিও । সেখানেই প্রবেশ করলো সে আর সোনালী. ঢুকেই সোনালী দেখলো নগ্ন দেহ দিয়ে ভর্তি ঘর আর সব দেহর মুখ তাঁর । অ’প্রস্তুত হয়ে উঠলো সুজন বললো আসলে আসলে একটা’ মুখ দরকার কমপ্লি’ট করতে জানি এইটা’ তোমা’কে একবার জিজ্ঞেস করা উচিত ছিল । হেসে উঠলো সোনালী মুখে বৃষ্টি ভেজা জ্বলবি’ন্দু যেন প্রতি হা’সিতে মুক্ত ঝরছে.

চুল খোলা খোলা চুল থেকেও জল ঝরে পড়ছে সালোয়ার এ এমন ভাবে স্তন যুগল ফুটে উঠেছে যেন কোনো ফুল প্রয়াফুটিত হয়েছে ভোরের আলো পেয়ে। দৃষ্টি সরাতে পারছে না সুজন। হটা’ৎ সোনালী বলে উঠলো কল্পনায় দেখেছো বাস্তবে দেখবে না কেমন দেখতে তোমা’র মডেল । বলে একপোলোকেই খুলে ফেললো নিজের সালোয়ার । জ্বলবি’ন্দু আবৃত শরীর থেকে চুয়ে পড়ছে জল । স্তন দেখে মনে হচ্ছে এক রসাবৃত্ত রসগোল্লা এবং তাঁর মা’ঝে তোতাধিক রসালো নিকুতি জ্বলবি’ন্দু যেন সেটিকে সত্যিই রসালো করেতুলেছে । sera choti

আজ বুঝতে পারলো সুজন কল্পনার নগ্ন দেহর আকর্ষণ এবং বাস্তবের নগ্ন দেহের আকর্ষণের মধ্যেকার পার্থক্য । সে নিজেকে আর সামলাতে পারলো না দৌড়ে গিয়ে তাঁর দুটি ঠোঁট সোনালীর ঠোঁট এ লাগলো । লাল ঠোঁট লি’পস্টিক এর ও যে নিজেস্ব স্বাদ থাকতে পারে সেটা’ আজ সে অ’নুভব করলো স্বাদ টা’ স্ট্রাবেরি এর । তাঁর জিভ ঠেকলো সোনালীর ঠোঁট এ । সুজিনের রন্ধ্রে রন্ধ্রে বি’দ্যুৎ ছুটছে । কামের বি’দ্যুৎ । এই বি’দ্যুৎ কি আর ঠোঁট এর চওয়ায় মেটে…. তাঁর মুখ চলে গেলো বক্ষ যুগলে ।

কোন এক অ’মৃ’তের আসায় যেন চুষেই চলেছে প্রাণ পনে । সোনালীর মুখ দিয়ে এক তৃপ্তি এবং শান্তির চিৎকার কিন্তু মৃ’দু । ষ্টুডিও বলেই খাট নেই এখানে একটি গদি আছে । সেখানেই দাঁড়িয়ে ছিল সোনালী । জামা’ সুজন নিজেই খুলেছিলো এবার হা’টু গেড়ে বসে পড়লো সোনালী । একটা’নে খুলে ফেললো সুজিনের trouser । অ’ন্তরবাস এ ফুটে উঠেছে সুজনের লি’ঙ্গ । এবার সেটিও খুলে দিলো সোনালী । সুজনের লি’ঙ্গ টি যেন এক ফনাধর সাপ । সেটিকে অ’শেষ নিপুনতায় মুখে ভরেনিলো সোনালী । sera choti

একসর্গীয় অ’নুভূতি ভিজে যাচ্ছে তাঁর লি’ঙ্গ । অ’সীম তৃপ্তি সহকারে লি’ঙ্গ টিকে গোলর্ধ করণ করেছে সোনালী । আর দাঁড়িয়ে থাকতে পারলো না সুজন তাঁর উত্তেজনা শীর্ষে । শুয়ে দিলো সোনালী কে খুলে দিলো তাঁর অ’বশিষ্ট পোষাক ও । সুজনের mone হলো এ কোনো স্বর্গের অ’প্সরী । সুজন কোথায় যেন পড়েছিলো কাম বাড়াতে গেলে পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুষ্টি এবং যোনির আবৃত অ’ংশে আলতো চাটা’ দিতে হয় । পা থেকে থাই tar পর যোনিতে অ’গ্রসর হলো ।

সোনালী সাময়িক বাধা দেওয়ার চেষ্টা’ করলো যদিও সেটা’ সেটা’ নিমিত্ত মা’ত্র সেটা’তেই আরো হিংস্র hoya উঠলো সুজন । মুখ প্রবেশ করালো যোনী গোহবরে । ঠিক সেই মুহূর্তেই এক অ’বদ্ভুত তৃপ্তির স্বর বেরিয়ে এলো সোনালীর মুখ থেকে । এটা’ই যেন সুজনকে আরো charged করে তুললো । চিৎ হয়ে শুয়ে সোনালী তাঁর ওপর উপুড় হয়ে শুয়ে সুজন । রিস্টপুষ্ট দ্বন্দ্বয়মা’ন বৃহৎ লি’ঙ্গ টি প্রবেশ করলো যোনি গহবরের ভিতরে । সোনালীর চিৎকার আহঃ । কাঁপছে উভয়র ই শরীর । sera choti

2জনের ই রন্ধ্রে রন্ধ্রে উত্তেজনা পরিতৃপ্তি পাচ্ছে উভয়ের কাম সুখ। সোনালীর 2টো হা’ত জাপটে ধরে আছে সুজনের পিঠ । দাগ বসে যাচ্ছে নখের । সোনালীর উচ্চসরের চিৎকার মেরে ফেলো মেরে ফেলো আমা’কে । ফাটিয়ে দাও আহঃ আহঃ আরো জোরে আরো আরো । একটু হা’পিয়ে গেছিলো বোধহয় সুজন গতি একটু স্লোৎ । seta বুঝেই এবার চিৎ করে শুয়ে দিলো সুজনকে । এবার তাঁর দাঁড়িয়ে থাকা বৃহৎ লি’ঙ্গ তে প্রবেশ করালো তাঁর যোনি । সুজন চেপে ধরলো তাঁর নিতম্ব ।

লাফানো শুরু করেছে সোনালী এবং তাঁর থেকেও জোরে লাফাচ্ছে তাঁর স্তন । সাথে সেই পরিতৃপ্তির চিৎকার আহঃ আহঃ আহঃ…… এবার সুজনের হা’ত চলে গেলো সোনালীর স্তন যুগলে । টিপেচলেছে তাঁর স্তন লাফিয়ে চলেছে সোনালী । সুজন জানে আর বেশি দেরি নেই । বেরোতে চলেছে তাঁর বীর্য । নিজের স্তন এ সুজনের মুখ ঢেকে তাঁর ওপর লুটিয়ে পড়লো সোনালী । বীর্যতে ভিজে গেছে তাঁর যোনি ।2জনের শরীর এই এখন ঘামে ভিজেগেছে, ভিজেগেছে যোনি, বাইরে বৃষ্টিতে ভিজে চলেছে কলকাতার রাস্তা । sera choti

স্মৃ’তি ছাড়োনায় বেঘাত ঘটলো বাজের শব্দে । আজও ঝরছে অ’ঝোর ধারায় বৃষ্টি । তাই বেশি kore মনে পড়ছিলো আজ সুজণবাবুর সোনালীর কথা । সেই দিনের পর আর কলেজ এ আসেনি সোনালী পরে শুনেছিলো সে একা নয় ফাইন আর্টস এর সকল ছাত্রই তাঁর শিকার হয়েছিলো । সোনালী যেন কালবৈশাখী ছিল হটা’ৎ ই এলো আবার চলেও গেলো । কিন্তু আজও মনে করলে সুজন বাবুর লি’ঙ্গ হিংস্র সাপের মতোই ফোনে তুলে ওঠে । সেই ঘটনার পর kete গেছে 7 টা’ বছর।

এখন সুজন সুজন বাবু হয়েছে নামকরা পেইন্টা’র কিন্তু যখন সোনালীর আসল রূপ জানলো সেদিনই পুড়িয়েফেলেছিলো তাঁর সাধের সমস্ত nacked art । আর nacked art করেনা সুজন এখন landscape modern art এর আর্টিস্ট হিসাবেই নাম তাঁর । বাইরে বৃষ্টি তারমা’ঝে সেই রাতের স্মৃ’তি একবার বি’র্থরুম এ যাওয়ার প্রয়োজন বোধকরলেন আজ একটু হস্তমৈথুন না করলেই নয় । পাশাপাশি 2টি ঘর । একঘরে সুজনবাবু এবং r একঘরে তাঁর বোন কামিনী । কামিনী এখন বড় হয়েছে । 12th এর পরীক্ষা দিয়েছে সবে । sera choti

কিন্তু এখনই যৌবন ফুটে উঠেছে তাঁর সমস্ত দেহে । বাড়িতে নাইটি পরে থাকে কামিনী তখন প্রায় সবসময় ই তাঁর বুঁকের দিকে চোখ চলে যায় সুজনের । বহুবার ভেবেছে ক্ষতিটা’কি নিজের বোন তো নয় দূরসম্পর্কের বোন । গায়ের রং একটু চাপা কিন্তু মুখশ্রী অ’সম্ভব রকম আকর্ষণীয় । কামিনীর শরীর বহুবার তাকে টেনেছে । দেহে মেদের লেশমা’ত্র নেই সুন্দরী তহ্নি দীর্ঘাজ্ঞী বলতে যাবোঝায় তাই । চুড়িদারপরলে ফুটে ওঠে নিটোল দীর্ঘ কোমর ফুটে ওঠে বুকথেকে ঠেলে বেরিয়ে আসা স্তনযুগল ।

সুজনের মনেহয় দৌড়ে গিয়ে চেপে ধরে । কিন্তু সামলে নেয় । কামিনী জানে তাঁর সুজনদা তাঁর দেহ কে আড়ালে দেখে তাতে সে অ’স্বস্তি বোধ করেনা বরং আনন্দই পায় । সেওচায় ঝাঁপিয়ে পড়ুক তাঁর ওপর ছিঁড়ে চুষে খাক তাঁর ভরা যৌবন । স্পর্শ করুক তাঁর বুকে নিতোম্বে । সেলক্ষ্য করে তাঁর বুঁকের দিকে তাকিয়ে ফুলে ওঠে সুজনদার প্যান্ট । কিন্তু নিজে মুখে বলতে পারেনা সুজনদা মিটিয়াদাও আমা’র যৌবনতৃষ্ণা স্বাদ দাও আমা’কে কামের । কিন্তু বলতে পারেনা সে । sera choti

সুজনবাবু বার্থরুম ই যাওয়ার সময় দেখে কামিনী ঘুমোচ্ছে পরনে নাইটি । ঘুমের অ’সাবধানোটা’তেই বোধহয় সেটা’ উঠে এসেছে থাই পেরিয়ে কোমর পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে তাঁর মসৃন পা থাই । সুজন অ’নুভবকরলো ফুলে ওঠা লি’ঙ্গ কামের স্বাদ নিতে চাইছে হস্তমৈথুন ই সে আর শান্ত হবে না । ঢুকে পড়লো ঘরে । বুকে দুরুদুরু কাঁপুনি । বাইরে বৃষ্টি সুজন দাঁড়ালো খাটের পাশে । নাইটি ফুলে ফুটে উঠেছে স্তন ব্রা হীন স্তন ।

কাছে যেতে সুজন বুঝতে পারলেন শুধু থাইনা নাইটি এর ফাঁক থেকে উকিমা’রছে যোনি প্যান্টের ভেতরে লাফাচ্ছে তাঁর লি’ঙ্গ । আর সামলাতে পারলোনা সুজন নিজেকে সমস্ত সম্পর্ক আজ সে ভুলে গেছে তাঁর শরীর এখন চায় শুধু কাম তাঁর লি’ঙ্গ চায় যোনি রস এর স্বাদ সুজন খুলে ফেললো তাঁর প্যান্ট সাথে পরনের গেঞ্জিও এখন সুজন সম্পূর্ণ নগ্ন উঠে গেলো প্রায় প্রায় অ’র্ধ নগ্ন কামিনীর ওপর । sera choti

ঘুম ভেগে গেলো কামিনীর দেখে অ’ন্ধকারে তারপর এক পুরুষ অ’কোষেস্মিক এই ঘটনায় চিৎকার করতে যেতেই তাঁর মুখে হা’ত দিয়ে সুজন বলে কামিনী আমি । আজ আর আটকাষ না আমা’কে। কামিনী পেথমে ঘাবরালেও সুজনের গলা এবং সে যে সম্পূর্ণ উলঙ্গগো বুঝেই হেসে বললো আটকালাম কোথায় তুমিই তো আসোনা আমা’র কাছে আগুন তো আমা’র শরীর এও বইছে এতদিনে নেভাতে এলে । এইশুনেই সুজন কামিনীর ঠোঁটএ ঠোঁট রাখলো জিভের সাথে ঠেকলো জিভ sujoner হা’ত কামিনীর নিটোল পুষ্ট নিতোম্বে ।

ঠোঁট থেকে কান গলা কামড়ে চেটে তাঁর jouboner সমস্ত টা’ উপভোগ করছে সুজন কামিনীর মুখে মৃ’দু উঃ উফফ আহঃ শব্দ । এইসব্দই প্রতিটা’ পুরুষ শুনতে চায় আর এইসব্দই আরো হিংস্র করে তোলে প্রতিটা’ পুরুষ কে সুজন ও হয়ে উঠলো হিংস্র । খুলে ফেললো কামিনীর নাইটি । তাঁর শরীর টা’কে ভালোভাবে উপভোগ করতে বেডসুইচ এ চাপ দিয়ে নাইট লাইট টা’ জ্বালালো সুজন চিৎ হয়ে শুয়ে আছে সম্পূর্ণ নগ্ন কামিনী । শারীরিক গঠন দেব লোকের অ’পশরীর মতোই বলে mone হলো সুজনের । sera choti

স্তনযুগল যেন 2তো রসালো আম জার বোটা’য় মুখ লাগালেই অ’মৃ’ত সমা’ন স্বাদ পাবে সুজন এই ভাবছে এমন সময় কামিনী বললো শুধুই দেখবে নাকি আমা’র শরীর এর আগুনও নেভাবে । সোনা মা’ত্রই মন্ত্র মুগ্ধর মতো তাঁর মুখ স্পর্শ করলো কামিনীর স্তন কামিনীর মুখের সেই তৃপ্তির আহঃ শব্দ । সুজিনের কানে স্তন চোষার চুক চুক শব্দ সাথে কামিনীর ক্ষনে ক্ষনে উফফ আহঃ শব্দ এক মনোমুগ্ধকর সঙ্গীত এর মতোই লাগলো সুজনের । 2টি স্তন ভালোভাবে সময় নিয়ে চুষে উপভোগ kore সেটিকে সম্পূর্ণ ভিজিয়ে সুজন নামলো নাভির দিকে ।

আঃহা’ কি অ’পূর্ব গোল গভীর নাভি এ যেন নাভি নয় অ’মৃ’ত কুয়ো । সেই খানেই জিভ দেওয়াতেই শরীর এর এক অ’পরূপ ভঙ্গিমা’ করলো কামিনী বুঝলাম দারুন তৃপ্তি পেয়েছে সে । খাটের পাশেই টেবি’ল এ একটা’ joler বোতল chilo সেটা’র থেকেই একটু ঢেলে দিলাম সেই অ’মৃ’ত কুয়োতে পরিপূর্ণ হলো কুয়ো এবার অ’মৃ’ত সেবন মুখ ঢুকিয়ে যত গভীরে সম্ভব গেলাম জিভ নিয়ে পরম তৃপ্তি ও উত্তেজনায় এবার মুখের আহঃ শব্দ টিও বেড়ে গেলো । sera choti

এবার নাভি থেকে যোনির দিকে নেমে বি’ভোর হয়ে গেলাম একদম শক্ত উঁচু কিছুটা’ লোমশ আবৃত কিন্তু অ’পূর্ব সুন্দর আমা’র এতক্ষণের কারুকার্য তে ভিজে রস গড়াচ্ছে ঠিক যেমন খেজুর গেছে হা’ঁড়ি পরিপূর্ণ হলে রস চুয়ে চুয়ে পরে ঠিক সেরম । প্রথমে জিভ দিয়ে এক হা’লকা চাটা’ সাথে সেই আহঃ চিৎকার উচ্চসরে আমি r থামলাম না বুভুক্ষর মতো চুষে আলতো কামড়ে khete লাগলাম যোনি ও যোনি রস ।

কি অ’দ্ভুত এক সুগন্ধ কামিনীর যোনি ও দেহ থেকে পারফিউম না অ’ন্য রখম কিন্তু অ’তিসুন্দর । সোনালীর দেহ থেকেও বেরিয়েছিলো এক অ’পরূপ সুগন্ধ জারসাথে এর মিল না থাকলেও সুগন্ধ বি’দ্যমা’ন হয়তো কাম দেবদেবী এর আগমন হেতুই ঘটে ঘটনাটি ।

এবার তাঁর লি’ঙ্গ টি মুখে নেওয়ার প্রস্তাব করলেন সুজন প্রথমে ইতস্তত করলেও সুগঠিত দণ্ডয়মা’ন বৃহৎ লি’ঙ্গের স্বাদ নেয়ার লোভ সামলাতে পারলো না কামিনী আবেগ বসত একটু বেসিটা’ই মুখে ঢুকিয়ে নিয়েছিল কামিনী গলা অ’বধি গিয়ে ধাক্কা দিলো লি’ঙ্গ টি এবার সামলে নিয়ে আসতে আসতে প্রথমে আগা আগায় জমে থাকা সামা’ন্য রস এবার ধীরে ধীরে গড়ার দিকে মুখ অ’গ্রসর করলো কামিনী ভিজে চপচপে লি’ঙ্গ। sera choti

এবার চিৎ হয়ে শুয়ে পড়লো কামিনী তাঁর ওপর সুজন যোনি গোহবরে প্রবেশ করালো সুজনের লি’ঙ্গ কামিনীর প্রথমবার তাই প্রবেশে বাধা আসছে বেথার চিৎকার ও আসছে কামিনীর গোলাদিয়ে । কামিনীর পা দুটোকে নিজের কাঁধে তুললো সুজন ফলে একটু ফাঁক হলো যোনি গহবর এবার প্রবেশ হলো চারপাশ আবদ্ধ শক্ত যোনি গহবর আসতে আসতে ভেতর বাহির করতে করতে একঝটকায় পুরোটা’ই লি’ঙ্গ প্রবেশ করলো যোনিতে সাথে বেথার চিৎকার কিছুক্ষন ভিতর বাহির করতে করতেই সুজন বুঝলো কামিনী চিৎকার করে যাচ্ছে…..

আঃহা’ আঃ আহহহহহ্হঃ উফফ কিন্তু এবারের চিৎকার পরিতৃপ্তির সুজন যেন এতে রকম হিংস্র হয়ে উঠলো গতি বাড়ালো সাথে বাড়লো কামিনীর চিৎকার অ’সম্ভব গতিতে লাফিয়ে চলেছে কামিনীর স্তন যুগল । সুজন দেখলো কামিনীর যোনি গোহবরে সামা’ন্য রক্ত পূর্ণতা পেলো কামিনীর নারীত্ব কিন্তু এইওবস্থা এ আর বেশিক্ষন চালানো jbe না মিলন। sera choti

এমন সময় sujoner নজর পড়লো কামিনীর নিটোল নিতোম্বে কামিনীর অ’গ্র ভাগ ই এতো সন্তুষ্টি দিয়েছে সুজনকে যে পশ্চাৎ এর কথা ভুলেই গেছিলো সে ধীরে ধীরে বার করলো nijer লি’ঙ্গ পশ্চাৎ দেখে তাঁর লি’ঙ্গ লাফিয়ে উঠেছে যেন ফোনে তুলছে কোনো বি’ষধর সাপ । হা’ঁটুভাজ করে উপুড় হয়ে শোওয়ালো কামিনীকে নিতম্ব এখন সুজনের মুখের সামনে নিতম্বর ছিদ্র দেখা যায় ।

মুখ ঢুকিয়ে পরম তৃপ্তিতে চাটতে লাগলো সুজন ভিজে গেছে ছিদ্র এবার ধীরে ধীরে প্রবেশ করালো লঙ্গ গতি বাড়িয়ে দিলো প্রথম থেকেই শারীরিক মিলনের শব্দ কামিনীর তৃপ্তিভরা আহহহহহ্হঃ আহহহহহ্হঃ শব্দ বাইরে বৃষ্টির শব্দ । কামিনী বললো সুজনদা আজ তুমি আমা’কে যে সুখ দিচ্ছ টা’ সপ্নাতীত আমা’র কাছে । সুজনের হা’ত এবার কামিনীর ঝুলে থাকা স্তনের দিকে ।

নিতম্ব ছিদ্র এ সুজনের লি’ঙ্গ r স্তনের উপর সুজনের হা’ত যেন কামিনীকে এক অ’বাধ নাগ পাশ এ বেঁধে ফেলছে গতি কমা’র নামনেই সুজনের সাথে স্তনের উপর হা’তের শক্ত টেপা সাথে ঘর এ মা’ঝে মা’ঝে সুজিনের কামড় ও চুম্বন । সুজন বুঝলো এবার বীর্য বেরোতে আর বেশি দেরি নেই । এবার সোজা করে সোয়ালো কামিনীকে। আবার যোনি তে প্রবেশ করলো আবার সেই স্বর্গীয় সুখ অ’নুভব করলো কামিনী। sera choti

গতি দুর্বার এখন সুজনের বীর্য লি’ঙ্গ এর দোরগোড়ায় গরম বীর্য ভিজিয়ে দিলো কামিনীর যোনি । সুজনের যোনি এলি’য়ে পড়লো কামিনীর ওপর । r একবার দীর্ঘ ঠোঁট স্পর্শ ও চুম্বন । তৃপ্তিতে ভরপুর দুজনেরই মুখ সন্তুষ্ট 2জনের ই দেহ । বাইরে অ’বি’রাম বৃষ্টিতে ভেজা রাস্তায় বি’ছানাও যে ভিজেগেছে যৌবন রসে তা কেউ জানতেও পারলো না ।

Source :
Allbanglachoti.com

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , ,

Comments