বিমানবালার সাথে দুই রাত-২

| By admin | Filed in: বিমানবালার সাথে দুই রাত.
আমার স্ত্রী গর্ভধারণের সময় নবনীতা আমার সাথে একটু বেশীই মাখামাখি করতে লেগেছিল। কারণ সে হয়ত বুঝতে পেরেছিল আমার স্ত্রী গর্ভবতী হবার কারণে দীর্ঘ সময়ের জন্য আমাদের শারীরিক মিলন বন্ধ হয়ে গেছিল তাই ঐসময় আমার কামবাসনা চরমে উঠে গেছিল। আমি লক্ষ করেছিলাম ঐসময়ে নবনীতা প্রায়শঃই কোনও না কোনও অজুহাতে তার রেশমী হাতে আমায় স্পর্শ করে আমার হৃদয়ের স্পন্দন বাড়িয়ে দিচ্ছিল।

একদিন সে আমার স্ত্রীর অনুপস্থিতির সুযোগে বলেছিল, “বিনয়দা, তুমি ত এখন পুনরায় অবিবাহিত জীবন কাটাচ্ছো, তাই চলো, এই সুযোগে আমি তোমায় বিমানে দেশের বিভিন্ন শহর ঘুরিয়ে আনবো!” আমি হেসে বলেছিলাম, “ম্যাডাম, আমার কিন্তু বিমানের ভাড়া দেবার সামর্থ্য নেই, তাই সেটা সম্ভব হবে না!”

প্রত্যুত্তরে নবনীতা আমার গাল টিপে হেসে বলেছিল, “না বিনয়দা, তোমার একটা পয়সাও খরচ হবেনা! তুমি আমার বড়ভাই হিসাবে আমার সাথে বিমানে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে যাত্রা করবে, পাঁচতারা হোটেলে থাকা খাওয়া সমস্তটাই বিনা মাশুলে! তবে ডিউটি থেকে ফিরতে আমার তিন থেকে চারদিন সময় লাগে। সেই সময়টা তোমাকেও আমার সাথে বাড়ির বাইরেই কাটাতে হবে। আর হ্যাঁ, এই ঘটনা তোমার স্ত্রী বা শ্বশুরবাড়ির লোক যেন ঘুনাক্ষরেও টের না পায়! তাহলে কিন্তু দক্ষযজ্ঞ বেঁধে যাবে!”

নবনীতার প্রস্তাবে আমার সারা শরীর দিয়ে যেন বিদ্যুৎ বইতে লেগেছিল। এমন এক স্বপ্নসুন্দরীর সাথে তিন চারদিন দেশ ভ্রমণ! তাও আবার বিনা খরচায়! এই প্রস্তাব ত লুফেই নিতে হবে! তাছাড়া আমি নিশ্চই এত বোকা নই, যে আমার স্ত্রী বা তার বাপের বাড়ির লোকেদেরকে এই ঘটনার বর্ণনা দেবার মূর্খামি করব!
আমি নবনীতার প্রস্তাবে পত্রপাঠ রাজী হয়ে গেছিলাম। নবনীতা আমায় তখনই বেরুনোর দিনটাও জানিয়ে দিল এবং নির্ধারিত দিনে নির্ধারিত সময় বিমানবন্দরের প্রবেশ দ্বারে তার অপেক্ষা করতে বলল। আমি স্ত্রী ও তার পরিজনদের জানিয়ে দিলাম, অফিসের একটি বিশেষ কাজে আমায় বাহিরে যেতে হচ্ছে এবং বাড়ি ফিরতে তিন থেকে চারদিন সময় লাগবে এবং তারা সেকথা মেনেও নিল।

নির্ধারিত দিনে লাগেজ নিয়ে সঠিক সময়ে বিমানবন্দরের প্রবেশ দ্বারে আমি নবনীতার অপেক্ষা করতে লাগলাম। ওঃহ, ঐখানে ত যেন জীবন্ত বার্বিডলের মেলা বসেছিল! প্রতি মুহুর্তেই কোনও না কোনও বার্বিডল গেট দিয়ে ঢুকছিল এবং কারুর দিক থেকেই যেন চোখ ফেরানো যাচ্ছিল না।

কিছুক্ষণের মধ্যেই নবনীতা আসল। সত্যি বলছি, বিমানবালার পোশাকে আমি আমার তথাকথিত ছোটবোন বার্বিডলকে চিনতেই পারিনি! খয়েরী স্কার্ট আর ক্রীম রংয়ের ট্রাউজার, পনিটেল করে চুল বাঁধা, অত্যধিক মার্জিত ভাবে আই লাইনার এবং আই শ্যাডো লাগানো চোখ, ঠোঁটে হাল্কা খয়েরী রংয়ের লিপস্টিক, গলায় ছোট্ট স্কার্ফ, যাতে এয়ারলাইন্সের লোগো বসানো, স্তনদুটি পুরো ছুঁচালো এবং একদম খাড়া, বাম স্তনের ঠিক উপরে নামের ব্যাচ লাগানো, সব মিলিয়ে এ এক সম্পূর্ণ অন্য নবনীতা, যার অন্তর্বাস ছাড়া নাইটি বা ম্যাক্সি পরা নবনীতার সাথে কোনও মিল ছিলনা!

নবনীতা এগিয়ে এসে আমার সাথে করমর্দন করে মুচকি হেসে ইয়ার্কি করে ইংরাজীতে বলল, “মি. বিনয়, মাইসেল্ফ মিস নবনীতা ….. এয়ার হোস্টেস এ্যণ্ড ইয়োর ট্যূর কম্পেনিয়ন! হাউ ক্যান আই সার্ভ ইউ, স্যার?”

আমি তখনও নবনীতা কে চিনতেই পারিনি! এবার নবনীতা হেসে বাংলায় বলল, “কি গো বিনয়দা, চিনতে পারছনা? আমি সমগ্র যাত্রাকালীন তোমার ছোটবোন, নবনীতা! অবশ্য তুমি চিনবেই বা কি করে! তোমার দৃষ্টি ত আমার মুখের দিকে না হয়ে আমার বুকের উপরেই আটকে আছে! ছোটবোনের উন্নত বক্ষস্থলের দিকে এভাবে লোলুপ দৃষ্টিতে চেয়ে থাকতে তোমার লজ্জা করছেনা? এতক্ষণ ত তুমি দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে আমার সমস্ত সহকর্মী এয়ার হোস্টেসদের গিলে খাচ্ছিলে!”

আমি নিজেকে সামলে নিয়ে ইয়ার্কিতেই জবাব দিলাম, “না, আসলে এখানে অপ্সরী দর্শন করতে ত আর পয়সা লাগেনা, তাই সুযোগর সদ্ব্যাবহার করছিলাম! তবে এখন ত আমার রূপসী কনিষ্ঠা ভগিনিকে পেয়ে গেছি! এখন শুধু তার দিকেই তাকিয়ে থাকবো!”

অপেক্ষামান যাত্রীদের পাশ কাটিয়ে নবনীতা আমায় সাথে নিয়ে ভীতরে ঢুকে গেল। বিমানে যাত্রী ওঠার আগে তাদের করণীয় কিছু কাজের জন্য সে আমাকে নিয়ে সোজাসুজি বিমানের ভীতর ঢুকে গেল এবং জানলার ধারে একটা ফাঁকা সীটে আমায় বসিয়ে দিল।

বিমানের ভীতর নবনীতা আমায় তার আরো দুই সহকর্মী বিমানবালা ঈপ্সিতা এবং অনিন্দিতার সাথে পরিচয় করিয়ে দিল। তিনজনের একই পোষাক। নবনীতার অসীম অনুকম্পায় করমর্দনের সুবাদে ঐ দুই কাজল নয়না হরিণির মাখনের মত নরম হাতের স্পর্শে আমার শরীর চিনমিনিয়ে উঠল।

আমি লক্ষ করলাম ঈপ্সিতা এবং অনিন্দিতা দুজনেই নবনীতার মত লম্বা, তন্বী এবং অসাধারণ সুন্দরী। দুজনেরই স্তনযুগল ছুঁচালো, খাড়া এবং অত্যধিক লোভনীয়। নবনীতার মত অন্য দুই বিমানবালারও সুগঠিত পদযুগল কালো পারদর্শক স্টকিংস দিয়ে আবৃত। পায়ে পেন্সিল হিল জুতো, যার ফলে হাঁটাচলা করলেই সরু কোমরের তলায় তাদের পাছাদুটো স্প্রিং বলের মত নড়ে উঠছিল।

আমি পাশাপাশি দাঁড়িয়ে থাকা তিনজন বিমানবালার উন্নত স্তনযুগলের দিক থেকে চোখ ফেরাতেই পারছিলাম না! কয়েক মুহুর্ত বাদে অনিন্দিতা মুচকি হাসি দিয়ে বলল, “নবনীতা, তোর তথাকথিত দাদার দৃষ্টি ত আমাদের বুকের উপরেই আটকে গেছে, রে! আঃহা, বেচারা বোধহয় কখনও একসাথে পাশাপাশি তিন রূপসী কে দেখেনি! বিনয়, কোথায় হারিয়ে গেছো তুমি? আমাদের তিনজনকেই ত বিমানে যাত্রী ঢোকার আগে নির্ধারিত কাজগুলো সেরে ফেলতে হবে। ঠিক আছে আমরা আমাদের কাজগুলো সেরে ফেলি, ততক্ষণ তুমি আমাদের তিনজনের অঙ্গভঙ্গিমা উপভোগ করতে থাকো! বিমান উড়ে যাবার পর ফাঁকা সময় আমরা তিনজনেই তোমার সাথে আরো গল্প করব!”

ওরা তিনজনে মিলে কাজে নেমে গেল এবং আমি সীটে বসে তিনজনের স্তনের কম্পন লক্ষ করতে লাগলাম। কিছুক্ষণ বাদে যাত্রীরা বিমানে প্রবেশ করল এবং নবনীতা, ইপ্সিতা এবং অনিন্দিতা সমস্ত যাত্রীকে অভ্যর্থনা জানিয়ে নির্ধারিত সীটে বসিয়ে দিল। এর আরো কিছুক্ষণ বাদে বিমান উড়ে যাবার জন্য দৌড়াতে আরম্ভ করল এবং কয়েক মুহুর্তের মধ্যেই আকাশে উড়ে গেল।

বিমান নির্ধারিত উচ্চতা অতিক্রম করলে যাত্রীদের সীটবেল্ট খুলে ফেলার নির্দেশ প্রসরিত হল। তারপর ওরা তিনজনে মিলে বিমান যাত্রীদের চা এবং স্ন্যাক্স বিতরণ করতে লাগল। যেহেতু আমার পাসের দুটো সীটেই অন্য কোনও যাত্রী ছিলনা, তাই আমার হাতে স্ন্যক্সের প্যাকেট দেবার সময় ঈপ্সিতা ইচ্ছে করেই মুচকি হেসে আমার একটা আঙ্গুল টিপে দিল। প্রত্যুত্তরে আমিও এক পলকের জন্য ঈপ্সিতার নরম হাতটা ধরে টিপে দিলাম।

প্রায় ঘন্টাখনেক পর ওরা তিনজনেই ফাঁকা হয়ে গেল এবং বিমানের একদম পিছনের অংশে একসাথে বসে পড়ল। এরই মধ্যে দুইজন যাত্রী পানীয় জল চাইল তখন নবনীতা ওদের দুজনকে পানীয় জল সরবরাহ করার জন্য উঠে গেল।

 

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , , ,

Comments