লকডাউনে কাম-রস-রঙ্গ ০২

December 4, 2020 | By admin | Filed in: চটি কাব্য.

লকডাউনে কাম-রস-রঙ্গ ০১

বান্টি ও মুমু আমাকে দুপাশ থেকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে আছে। বান্টি একটা পা আমার শরীরে তুলে দিয়েছে। রাতে আমরা এভাবেই ঘুমাই। আমাকে জড়িয়ে না ধরলে ছেলের ঘুম আসেনা। ঘুমানোর সময় আমি স্লিভলেস নাইটি পরি। ব্রা, প্যান্টি পরিনা কারণ ওসব পরে ঘুমাতে পারিনা। মুমু ঢোলা শর্টস আর টেপ পরলেও ব্রা-প্যান্টি পরনো। বান্টি শুধু একটা বার্মুডা হাফ প্যান্ট পরে। ঘুমের মধ্যে কখনোকখনো আমার নাইটি কোমরের কাছে উঠে আসে। যেহেতু খুব ছোট থেকেই ওরা আমার সাথে এভাবে ঘুমিয়ে অভ্যস্ত তাই এতে আমরা কোনো সমস্যা বোধ করিনা।

‘লকডাউনে ঘরে বন্দি থেকে থেকে আমি খুবই বোওর্ড ফীল করছি।’ বান্টির অলস হাত আমার একটা স্তন ছুঁয়ে আছে।
‘মাম, নতুন কিছু করতে না পারলে আমিও ম্যাড হয়ে যাব।’ মুমুও তার অস্থিরতা চেপে রাখতে পারছে না।
‘তোমরা কি করতে চাও বলো?’

আমার সমস্যা আরো প্রকট। ছেলেমেয়েরা বাসায় থাকায় গত একমাস ধরে রবিনের সাথে সেক্স করার সুযোগ পাচ্ছি না। যদিও গোসলের সময় ২/৩ দিন পরপর ডিলডো ব্যাবহার করি। কিন্তু ডিলডো বা আঙ্গুলের ব্যবহারে কি আর পেনিসের স্বাদ পাওয়া যায়! তাই সবসময় একটা যৌনতাড়না বোধ করছি। কিন্তু আমার হতাশার কথা ছেলেমেয়েকে বলাও যায়না।

এসময় রবিনের ফোন পেলাম। বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলার পরে রবিন যখন বললো ‘লাভ ইউ সুইট বেবী, গুডনাইট’ তখন এই প্রথম ছেলেমেয়ের সামনে আমিও তাকে বললাম ‘রবিন, আই লাভ ইউ ম্যান, গুড নাইট’।

বান্টি, মুমু দুজনের দিকে তাকিয়ে আমি হাসলাম। ওরাও পালটা হাসি উপহার দিলো। রবিনের বিষয়টা প্রকাশ হবার পরথেকে আমিও দুজনকে সবকিছু জানানোর একটা তাগিদ বোধ করছি। মনে হলো এটাই উপযুক্ত সময়। তাই রবিনের সাথে আমার সম্পর্কের পূর্বাপর ঘটনা জানানোর সিদ্ধান্ত নিলাম।

রবিন আমার স্বামীর ভাগনে। ওদেরকে জানালাম কার এক্সিডেন্টে তোমাদের বাবার মৃত্যুর পর থেকে সে আমাকে সাহায্য করছে। এই ব্যবসাটা রবিনের সাহায্যে দাঁড় করিয়েছি। ওর পরামর্শেই সি-বীচের কাছাকাছি আমাদের এই পাঁচতলা বাড়ীটা হোটেলে রূপান্তরীত করি। বিদেশীদেরকে টার্গেট করে প্রতিটা রুম আধুনিক ডিজাইনে সাজাই। ওর আর্থিক সাহায্য, পরামর্শ আর পরিশ্রমের কারণে আমি মাথা তুলে দাঁড়িয়েছি। আর্থিক স্বাচ্ছন্দ পেয়েছি।

তোমাদের রবিন ভাইয়া কখনো আমার দিকে হাত বাড়ায়নি। আমিই বরং তাকে ইনসিস্ট করেছি। পাশাপাশি কাজ করতেগিয়ে আমার শরীর-মন কখনযে রবিনের প্রতি আকৃষ্ট হয়েছে তা বুঝতে পারিনি। সবকিছুর জন্য আমি রবিনের প্রতি কৃতজ্ঞতা বোধ করতে লাগলাম। রবিনকে দেয়ার জন্য খুব দামী উপহার খুঁজতে লাগলাম। কিন্ত কোনোটাই মনে ধরছিলো না। তাই শেষে একদিন সেরা উপহার হিসাবে নিজেকেই তার কাছে সমর্পণ করলাম।

সেদিনের ঘটনা আমার এখনো মনে আছে। তোমরা কয়েকদিনের জন্য দাদুর বাসায় বেড়াতে গিয়েছিলে। সময়টা বর্ষাকাল। একটা জরুরী কাজে আমার কাছে আসার সময় রবিন ভিজে চুপসে গেছে। কোনোকিছু না ভেবেই আমি টাওয়েল দিয়ে ওর মাথা মুছতে লাগলাম। সেদিন আমার শরীর, মন বিদ্রোহ করলো। হয়তো এটা পুরুষের আদর সোহাগ থেকে বঞ্চিত থাকার ফল। আমি রবিনের গালে চুমাখেলাম। রবিন আমার দিকে তাকিয়ে হাসলো। এটাকে সম্মতি ধরে নিয়ে আমি তাকে জড়িয়ে ধরে চুমাখেলাম।
‘মামী এটাকি ঠিক হচ্ছে?’ রবিনের কথা যেন হাওয়ায় ভেষে আসলো।

আমি বললাম,‘জানিনা। তুমি বলো, তোমার কি খারাপ লাগছে অথবা..?’ আমি তখনো রবিনকে জড়িয়ে ধরে আছি।
রবিন বললো,‘পরে তোমার খারাপ লাগতে পারে।’
এরপর রবিনকে আমি আর কোনো কথা বলতে দেইনি। আমার চুমুতে ওর সব কথা হারিয়ে গেলো। আমরা প্রায় দশ মিনিট ধরে চুমাখেলাম। তারপর একেঅপরের শরীরের মাঝে হারিয়ে গেলাম। আমার শরীরের ভিতর বর্ষণ শুরু হলো। অনেকদিন পর আবার আমি আমার নাবীত্ব উপভোগ করলাম।

তোমাদেরকে আরো একটা গোপন কথা বলি। আমাদের এই হোটেলে যেসব বিদেশী উঠে তাদের কাউকে খুব পছন্দ হলে আমি কখনো কখনো ২/১ জনের সাথে বিছানায় একটু মজা করি। এখানে ইকোনোমিক্যাল কোনো ব্যাপার নেই। পুরাটাই ফ্যান্টাসী, সেক্স ট্যাবু আর পিওর ইনজয়মেন্ট।

দুজন নিঃশব্দে আমার কাহিনী শুনলো। আমি তাদের প্রতিক্রিয়ার অপেক্ষা করছি। ভাইবোন আমাকে জড়িয়ে ধরে চুমাখেলো। মেয়েই প্রথমে নীরবতা ভাঙ্গলো। উৎফুল্ল কন্ঠে বললো,‘ওহ মাম্মি আই এম ইমপ্রেস্ড। ইট’স সো রোমান্টিক!’

বান্টি আমাকে জড়িয়ে ধরে বললো,‘তোমার সবকাজে আমাদের সমর্থন আছে। যখন মন চাইবে তুমি ভাইয়াকে বাসায় ডেকো। আমরা বাসায় থাকলেও তুমি হেজিটেট করোনা। বান্টি ভাইয়ার সাথে তোমার সেক্স রিলেশন নিয়ে আমার কোনো সমস্যা নাই। আমি তোমাদের প্রাইভেসিতে নাকগলাবো না। আমি জানি মুমুও এটাই বলবে।’

মুমু তার নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরে এমন ভ্রূ-ভঙ্গী করলো যার ভাবটা হলো ‘আই ডোন্ট হ্যাভ এনি প্রবলেম’। তারপর আমার দিকে তাকিয়ে মুচকি হেসে বললো,‘আম্মু প্লিজ তুমি কিন্তু দরজা লক করোনা। তোমাদের রোমান্টিক লাভ মেকিং আমি কিন্তু মিস করতে চাইনা।

আমার মেয়ের চোখের তারায় তারায় দুষ্টুমি। এতটাই খোলামেলা সম্পর্ক আমাদের যে, মুমু খুব সহজেই আমাকে এসব বলতে পারছে। আমি দুজনের গালে চুমুখেলাম। ওরাও আমাকে চুমাখেলো। তবে মুমু আমার ঠোঁটে ফ্রেঞ্চ কিস করলো। আমি আগেই বলেছি মেয়েটা বরাবরই প্রচন্ড বুদ্ধিমতী আর পরের প্রশ্নেই সে তার স্বাক্ষর রাখলো।
‘রবিন ভাবীকে তোমরা এতদিন ধরে কি ভাবে ম্যানেজ করলে?’
আস্তে করে বললাম,‘আমরা তিনজন একসাথে সেক্স করি।’

বান্টি শুনেই হৈ হৈ করে উঠলো। ‘তিনজন একসাথে..আই মিন থ্রীসাম সেক্স! ইট্স আমেইজিং। মুমু তুমি কি কিছু বুঝতে পারছো?’
থ্রীসাম সেক্স কী, এই বিষয়ে মুমুর কোনো ধারণা ছিলোনা। বান্টির কাছে শুনে মেয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরে বললো,‘তাহলেতো এসব আমাকে দেখতেই হবে। ভাইয়া তুমি কি বলো?’
হাতে হাতে বাড়ি মেরে ভাইবোন যেভাবে হাই-ফাইভ করলো তাতে বুঝলাম আমাদের লাইভ সেক্স দেখতে বান্টিরও কোনো আপত্তি নাই।

গল্পে গল্পে রাত গভীর হচ্ছে। স্তনে বান্টির হাতের নড়াচড়া দেখে বুঝলাম ওর ঘুম পেয়েছে। এবার আমাকে জড়িয়ে ধরে স্তন মুখে নিয়ে ঘুমাবে। সবসময় না মাঝেমধ্যে সে এটা করে। ওর বাবারও এই অভ্যাস ছিলো। সারারাত দুধের বোঁটা মুখে নিয়ে ঘুমাতো। স্তনজোড়ায় যখন দুধের নহর বইতো তখনতো তার ছিলো পোয়াবারো। কতোদিনযে আমার স্তনসুধা পানকরে দুধের ভান্ডার শূন্য করে ফেলেছে তার ইয়ত্তা নাই। দুধে টইটুম্বুর ফোলা ফোলা বোঁটা চুষতো আর বলতো আমি নাকি তার রেড কাউ..দুধেল গাই।

কয়েকদিন পরের ঘটনা। দু’ভাইবোন ড্রইংরুমে কার্পেটের উপর পাস্তাপাস্তি করছে। বান্টি বোনকে নিচে ফেলে তার উপর উঠে বসলো। মুমুর ম্যাক্সি বুকের কাছে উঠে এসেছে। বান্টির পাছার নিচে বোনের প্যান্টি আবৃত যোনীফুল চাপা পড়েছে। মুমু বাতাসে হাত খেলিয়ে মুঠি খুলে দেখালো, কিছু নাই। সে ঠোঁট চেপে হাসছে।
‘আমার চকলেট তুমি কোথায় লুকিয়েছে?’
মুমু মুখের চকলেট একটু দেখিয়েই দ্রæত চিবুতে চিবুতে ভাইকে বললো,‘পারলে এখান থেকে বাহির করে নাও।’

বোনের চালাকির সাথে পেরেউঠা ওর কম্ম নয়। বান্টি হাল ছেড়েদিয়ে বোনের উপর থেকে নেমে আমার দিকে এগিয়ে আসছে। কিন্তু এমন পরিস্থিতিতে মুমু ঠিকই ভাইএর মুখে মুখ লাগিয়ে চকলেটের ভাগ আদায় করে নিতো। মুমু লাফিয়ে উঠে ভাইকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরলো। এরপর মুখ থেকে গলিত চকলেট আঙ্গুলে মাখিয়ে বান্টির ঠোঁটের মাঝে চেপে ধরলো। আর বান্টিও খেতে কোনো আপত্তি করলো না।

দুজনের হুটোপুটি দেখতে দেখতে আমি রবিনের সাথে মোবাইলে ভিডিও চ্যাট করছি। ওর বউ পাশেই বসে আছে। ওদের সাথে যৌন সম্পর্ক নিয়ে ছেলেমেয়ের সাথে যেসব কথাবার্তা হয়েছে সব জানালাম। বান্টি-মুমু সবকিছু স্বাভাবিক ভাবে নিয়েছে শুনে দুজনের বিশ্বাসই হচ্ছেনা। ওদের দোলাচলের মাঝে আমি আমন্ত্রণ জানালাম,‘কালই দুজন বাসায় চলে এসো। ডিলডো ব্যবহার করে ওটার প্রতি আমার অরুচী ধরেগেছে।’
‘তোমার সাথে শোয়ার জন্য আমারও তর সইছেনা।’ রবিন জানালো।

‘আমিও মামীর পুসির জন্য অস্থির হয়ে আছি।’ রবিনের বউ উত্তেজনায় চটপট করছে। আমার সাথে লেসবিয়ান সেক্স করতে সে খুবই পছন্দ করে।
‘আমার পুসি বিড়াল রবিনের ললিপপ খাওয়ার জন্য মিউ মিউ করছে।’ আমি ফিসফিস করে বললাম।
‘ওটার মুখদিয়ে কী মধু ঝরছে?’
‘আমার এখন মধুকাল চলছে। তোমার জন্য জমিয়ে রাখবো। তুমি এসে মধু খেয়ো।’
‘একটু দেখাও।’ রবিনের বউ আব্দার করলো।
‘দুর পাগলী, ছেলেমেয়েরা কাছেই আছে।’ মোবাইলের ক্যামেরা ঘুরিয়ে দেখালাম।
‘তোমার যোনীফুল থেকে চুমুক দিয়ে আর হুল ফুটিয়ে মধু খাবো। যোনী সুধা আকন্ঠ পানকরে আমার তৃষ্ণা মেটাবো।’
‘দুষ্ট ছেলো। মামীকে এসব বলতে হয়না।’ পুলকে আমার শরীর কাঁটা দিচ্ছে। আমার যৌকাতর কন্ঠ রবিন ঠিকই টেরপেলো।
‘তুমিতো আমার রাধা আর আমি তোমার কৃষ্ণ। তোমাকে খাওয়াবো বলে আমার কৃষ্ণধোনে রস জমিয়ে রেখেছি।

রবিনের উত্তেজক ডায়লগ শুনে আমার যোনীপথ উষ্ণ রসে পিচ্ছিল হচ্ছে। মাংসল দুই রান একত্রে চেপেধরে বললাম,‘কতদিন তোমার কৃষ্ণধোনের রস খাইনি। আমি খাবো আর যোনী সরোবরে ধারণ করবো।’
‘আমি তোমার কৃষ্ণদাস। রাধা যা চায় তাই হবে।’
‘তাহলে আদর করে একটু গালিদাও।’
‘রাধা মাগী..রাধা মাগী..রাধা মাগী..।’

আমি চুমু খেয়ে সংযোগ কেটেদিলাম। আগামীকাল ওরা আসছে ভাবতেই যোনীপথে সিরসিরানি বাড়ছে। ইশ! কতোদিন পরে দুজনকে কাছে পাবো।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,

Comments